আজ শনিবার , ২৩ জানুয়ারি ২০২১ ইং  , ১০ মাঘ ১৪২৭ বঃ , ৮ জমাদিউস সানি ১৪৪২ হিঃ

জেনে নিন কোন কোন কারণে রোজা ভঙ্গ হয় এবং কোন কোন কারণে রোজা ভঙ্গ হয় না

আসসালামু আলাইকুম, সবাই কেমন আছেন ? আশা করি ভাল ! আমিও আল্লাহ্‌র রহমতে ভাল আছি । চলছে পবিত্র রমযান মাস, অনেকেই জানেন না কেন রোজা ভঙ্গ হয় এবং কেন ভঙ্গ হয় না । তাদের জন্যই আজকের এই পোষ্ট । আশা করি আপনাদের উপকারে আসবে ।

চলুন দেখি কেন রোজা ভঙ্গ হয়ঃ

  • রোযা স্মরণ থাকা অবস্থায় পানাহার করা কিংবা স্ত্রী সহবাস করা।এতে কাযা ও কাফফারা (একাধারে দুই মাস রোযা রাখা) ওয়াজিব হয়।
  • রমজান মাস ব্যপি একবারও রোজার নিয়ত না করিলে ।
  • নস্যি গ্রহণ করা।
  • ইচ্ছকৃতভাবে মুখ ভরে বমি করা।
  • বমি আসার পর তা গিলে ফেলা।
  • রাত্রি সন্দেহ করিয়া সুবহে সাদিকের পর সেহরি খাইলে ।
  • সূর্যাস্তের পূর্বে সূর্য অস্তমিত হয়েছে ভেবে ইফতার করা। এগুলোতে শুধু কাযা (যে কয়টা ভাংবে সে কয়টা পরবর্তিতে রাখতে হবে)ওয়াজিব হয় । কাফফারা নয় ।কিন্তু রোযা ভেঙ্গে যাওয়ার পর দিনের অবশিষ্ট সময় রোযাদারের ন্যায় পানাহার ইত্যাদি থেকে বিরত থাকা উচিৎ।
  • কুলি করার সময় বা যে কোন ভাবে পানি গলার ভিতরে ঢুকে পড়া।
  • রোজা থাকা অবস্থায় সিঙ্গা লাগাইয়া রোজা ভঙ্গ হইয়াছে করতঃ পানাহার করিলে ।
  • বুট বা ডাল পরিমাণ কোন বস্ত দাঁতের মধ্যে হইতে বাহির করিয়া তা গিলে ফেলিলে, অথবা সরিষা পরিমাণ কোন বস্তু গিলে ফেলিলে ।
  • ঘুমের মধ্যে কেহ কোন কিছু পান করাইলে এবং রোজা ভঙ্গ হইছে ইহা ভাবিয়া পুনঃরায় কোন কিছু খাইলে ।
  • যৌন খায়েশের সহিত স্ত্রীকে চুম্বন করিলে ।
  • ধূমপান করা, লোবান বা আগরবাতির ধোঁয়া গ্রহন করিলে ।
  • মুখে পান রেখে ঘুমিয়ে পড়া অবস্তায় সুবহে সাদেকের পর জাগ্রত হওয়া।
  • কোন প্রকার নেশা জাতীয় কিছু গ্রহন করিলে , কানে তৈল বা ঔষধ ঢালা, পায়খানার জন্য ডুস লওয়া ।

 

যে সকল কারণে রোজা ভঙ্গ হয় নাঃ

  • ভুলক্রমে পানাহার করা।
  • আতর সুগন্ধি ব্যবহার করা বা ফুল ইত্যাদির ঘ্রাণ নেওয়া।
  • নিজ মুখের থু থু কফ গিলে ফেলা।
  • মাথা ,শরীর বা মুখে তেল, ক্রিম ,লোশন ইত্যাদি ব্যবহার করা।
  • অনিচ্ছাকৃতভাবে গলায় মশা, মাছি, ধোঁয়া বা ধুলাবালি প্রবেশ করা।
  • অনিচ্ছাকৃতভাবে কানে পানি প্রবেশ করা।
  • অনিচ্ছকৃতভাবে বমি হওয়া।
  • চোখে ওষধ , সুরমা বা ড্রপ ব্যবহার করা ( খুব প্রয়োজন হলে ) ।
  • ইনজাকশন নেয়া ( খুব প্রয়োজন হলে )।
  • ঠান্ডার জন্য গোসল করা।
  • ঘুমে স্বপ্নদোষ হওয়া।
  • মিসওয়াক করা।
  • রাতে স্ত্রী সহবাস করে সুবহে সাদিকের পর গোসল করলে অর্থাৎ সেহরি খাবার পূর্বে গোসল করতে হবে ।

 

যে সকল কারনে রোযা মাকরুহ হয়ঃ

  • মিথ্যা কথা বলা।
  • গীবত বা চোগলখোরী করা।
  • গালাগালি ও ঝগড়া ফাসাদ করা।
  • সিনেমা দেখা বা অন্য কোন কবিরাহ গুনাহে লিপ্ত হওয়া।
  • সারাদিন নাপাক অবস্থায় থাকা।
  • রোযার কারনে অস্থিরতা বা কাতরতা প্রকাশ করা।
  • কয়লা, মাজন, টুথ পাউডার, টুথ পেষ্ট বা গুল দিয়ে দাঁত মাজা।
  • অনর্থক কোন জিনিস মুখের ভিতর দিয়ে রাখা।
  • অহেতুক কোন জিনিস চিবানো বা চেখে দেখা।
  • কুলি করার সময় গড়গড়া করা।
  • নাকের ভিতর পানি টেনে নেয়া (কিন্তু সে পানি গলায় পৌছে গেলে রোযা ভেঙ্গে যাবে)
  • ইচ্ছকৃতভাবে মুখে থু থু জমা করে গিলে ফেলা ।
  • ইচ্ছকৃতভাবে অল্প বমি করা

 
আজ এই পর্যন্তই, আল্লাহ্‌ হাফেজ ।
 

বিভাগঃ রোজা । এই পোষ্টটি ২৪৫৪ বার পড়া হয়েছে
কোন মন্তব্য নেই

আপনার মন্তব্য লিখুন

এই পোষ্টে মন্তব্য করতে অবশ্যই » লগইন করতে হবে ।
  • নামাজের সময়সূচী

    বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২০
    ওয়াক্ত শুরু জামাত
    ফজর ০৪.৪৪ ০৫.১৫
    জোহর ১১.৪৮ ০১.১৫
    আসর ০৩.৫৫ ০৪.৩০
    মাগরিব ০৫.৩৬ ০৫.৪০
    এশা ০৬.৫০ ০৭.৩০
    সূর্যোদয় : ০৫.৫৬ মিঃ
    সূর্যাস্ত : ০৫.৩২ মিঃ
  • Ads

  • বিভাগসমুহ

  • অন্যান্য পাতাসমুহ



    Add Address

  • ভিজিটর তথ্য

    আপনার আইপি
    3.238.70.175
    আপনার অপারেটিং সিস্টেম
    Unknown
    আপনার ব্রাউজার
    " অপরিচিত "
  • ভিজিটর কাউন্টার


    free hit counter