পবিত্র মক্কার দিকে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ :: অটো চালাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি ! :: ১৫০ সন্তানের বাবা ভারতীয় রেলকর্মী :: যিশুখ্রিস্টের ‘কবর’ উন্মুক্ত করল বিজ্ঞানীরা :: শিশুর ঠোঁটে চুমু দিলে ভয়ানক বিপদ :: বিড়ালের মাংসের বিরিয়ানি খাচ্ছেন না তো? :: 'প্রেমিকদের' দেয়া ২০ আইফোন বিক্রি করে বাড়ি ক্রয়! ::
আজ মঙ্গলবার , ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ ইং  , ৪ মাঘ ১৪২৩ বঃ , ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিঃ

তরমুজের পুষ্টিগুণ

সারাদিনের গরমে যখন সবাই ক্লান্ত তখন এক গ্লাস ঠাণ্ডা পানিই এনে দেয় সতেজতা । ক্লান্তি এড়াতে আমরা ঠাণ্ডা শরবত বা বাণিজ্যিক জুস খেয়ে থাকি । কিন্তু লক্ষ্য রাখতে হবে যেন তাতে আবার ওজন বেড়ে না যায় । তাই এই গরমে ক্লান্তি এড়াতে আমরা তরমুজ খেতে পারি যা আমাদের সবার হাতের নাগালের মধ্যেই রয়েছে ।

*  তরমুজে পানির পরিমাণ শতকরা ৯২ ভাগ । এতে ক্যালরির পরিমাণও অনেক কম। এছাড়াও এতে রয়েছে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান । ভিটামিন সি, থায়ামিন ও ম্যাগনেসিয়ামের উপস্থিতি আছে তরমুজে। এতে কোনো কোলেস্টেরল নেই এবং কোনো সম্পৃক্ত চর্বিও নেই ।
*  গবেষণায় দেখা গেছে যে, তরমুজে মাত্র ৩০ ভাগ ক্যালরি থাকে । এত কম ক্যালরি থাকার কারণে তরমুজকে ওজন কমানোর একটি অত্যাবশ্যকীয় খাদ্য উপাদান হিসেবে বিবেচনা করা যায় ।
* ওজন কমানোর জন্য প্রতিদিন স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে । প্রতিদিনের খাবারের ক্যালরি এমন হওয়া উচিত যা শরীরের প্রয়োজনীয় ক্যালরি থেকে কম হবে ।
* তরমুজে চিনির পরিমাণ খুবই কম। মাত্র ৬ ভাগ চিনি এর মধ্যে বিদ্যমান। রক্তে চিনির পরিমাণ বেড়ে গেলে শরীর থেকে বেশি বেশি ইনসুলিন নিঃসরিত হয় যার কারণে শরীরে চর্বি জমতে থাকে । তরমুজে যেহেতু চিনি কম তাই এটি বেশি পরিমাণে খেলেও চর্বি জমার কোনো সম্ভাবনা নেই ।
* তরমুজের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স অনেক বেশি কিন্তু গ্লাইসেমিক লোড অনেক কম। গ্লাইসেমিক ইনডেক্স হল, খাবারে শর্করার পরিমাণ যা সরাসরি রক্তে চলে যায় এবং প্রভাব ফেলে। গ্লাইসেমিক লোড হল খাবারের কত গ্রাম শর্করা রক্তে যায় তার পরিমাণ। তরমুজের যেহেতু গ্লাইসেমিক লোড অনেক কম তাই বেশি পরিমাণে খেলেও রক্তে চিনির পরিমাণ বাড়বে না ।
* তাই এই গরমে ওজন কমাতে প্রচুর পরিমাণে তরমুজ খেতে পারেন। তবে যাদের কিডনির সমস্যা আছে তাদের ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী খেতে হবে ।
* তরমুজে আঁশ এর পরিমাণ অনেক বেশি । আঁশযুক্ত খাবার শরীরে বিপাকক্রিয়ায় হজম হতে অনেক সময় নেয় । আর তরমুজে যেহেতু পানির পরিমাণও বেশি থাকে তাই খাওয়ার পর অনেকক্ষণ ক্ষুধা বোধ হয় না । এ কারণে যাদের ঘন ঘন খাওয়ার অভ্যাস তারা এই গরমে বেশি পরিমাণে তরমুজ খেতে পারেন । তাতে আপনার ওজন বাড়ার কোনো সম্ভাবনা থাকবে না ।
* তরমুজ খুব ভাল পানি নিঃসরণকারী হিসেবে কাজ করে । এতে উপকারী মিনারেল সোডিয়াম ও পটাসিয়াম থাকে যা শরীর থেকে অতিরিক্ত পানি দূর করে ।
* আমরা সাধারণত তরমুজের লাল অংশটাই খেয়ে থাকি । কিন্তু এর সাদা অংশটাও বেশ উপকারী। এর সাদা অংশে ‘সাইট্রুলিন’ নামে একটি অ্যামাইনো এসিড থাকে যা খেলোয়াড়দের জন্য খুবই উপকারী।
*  খেলোয়াড় বা যারা ব্যায়াম করে তাদের মাংসপেশীতে খুব দ্রুত শর্করার পরিমাণ কমে যায় । তাই তারা খুব সহজেই অবসাদ বোধ করে ।
* তরমুজের ‘সাইট্রুলিন’ মাংসপেশীর এই অবসাদকে দূর করে যা একটানা অনেকক্ষণ ব্যায়াম করতে সহায়তা করে। তাই তরমুজ কাটার সময় সাদা অংশটা কিছুটা গাঢ় করে কাটা উচিত।
* এছাড়া তরমুজের পটাসিয়াম শরীরের অম্ল ও ক্ষারের ভারসাম্যতা রক্ষা করে যা শরীরে শক্তি যোগায় । তাই এই গরমে খেলাধুলা বা বায়ামের পরে ক্যালরিযুক্ত বাণিজ্যিক জুস না খেয়ে তরমুজের জুস খাওয়া যেতে পারে।
* তরমুজে ‘লাইকোপিন’ থাকে যা এর লাল রং এর জন্য দায়ী। লাইকোপিন একটি অক্সিজেন যা শরীরকে ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে রক্ষা করে। লাইকোপিনের আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হল এটি ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।
* এছাড়াও তরমুজ ত্বক পরিষ্কার রাখে। ত্বককে করে তোলে আরো সতেজ ও প্রাণবন্ত । তাই এই গরমে ওজন কমানোর পাশাপাশি হয়ে উঠুন আরো সুন্দর ।
লেখক : ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনিস্ট, লেজার মেডিক্যাল সেন্টার

সূত্রঃ বাংলানিউজ২৪.কম

বিভাগঃ স্বাস্থ্য সেবা । এই পোষ্টটি ৮২৬ বার পড়া হয়েছে
কোন মন্তব্য নেই

আপনার মন্তব্য লিখুন

এই পোষ্টে মন্তব্য করতে অবশ্যই » লগইন করতে হবে ।
  • নামাজের সময়সূচী

    রবিবার , ৩ জুলাই ২০১৬
    ওয়াক্ত শুরু জামাত
    ফজর ০৩.৫০ ০৪.০৫
    জোহর ১২.০৬ ০১.১৫
    আসর ০৪.৪২ ০৫.১৫
    মাগরিব ০৬.৫৪ ০৭.০০
    এশা ০৮.২০ ০৮.৩৫
    সূর্যোদয় : ০৫.১৪ মিঃ
    সূর্যাস্ত : ০৬.৫৪ মিঃ
  • অন্যান্য পাতাসমুহ

  • ভিজিটর কাউন্টার


    free hit counter
  • ভিজিটর তথ্য

    আপনার আইপি
    54.211.112.177
    আপনার অপারেটিং সিস্টেম
    Unknown
    আপনার ব্রাউজার
    " অপরিচিত "
  • বিজ্ঞাপন


    Propellerads